শ্রমিক নিয়োগ বন্ধের সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের সাথে চুক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হবে না

মালয়েশিয়ায় বিদেশি শ্রমিক নিয়োগ বন্ধের সিদ্ধান্ত বাংলাদেশের সাথে সম্পাদিত ‘জিটুজি প্লাস’ বাস্তবায়নে কোন সমস্যার সৃষ্টি করবে না বলে জানিয়েছেন মালয়েশিয়ার জনসম্পদ মন্ত্রী দাতুক শেরি রিচার্ড রাইয়ট। মালয়েশিয়ান সংবাদপত্র ‘দ্যা স্টার’ দেশটির জনসম্পদ মন্ত্রীকে উদ্ধৃত করে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

তিনি বলেছেন, বাংলাদেশের সাথে যে চুক্তি হয়েছে তা পাঁচ বছরের জন্য কার্যকর। মালয়েশিয়ার বিদেশি শ্রমিক না নেয়ার সিদ্ধান্তের কারণে বাংলাদেশের সাথে সম্পাদিত চুক্তি অকার্যকর বা বাতিল হবে না। যখন বিদেশি শ্রম আমদানীর ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার হবে তখন জিটুজি প্লাস কার্যকর হবে।

এর আগে গত ১২ মার্চ মালয়েশিয়ান ডেপুটি প্রাইম মিনিস্টার দাতুক শেরি ড. আহমেদ জাহিদ হামিদি বলেছেন, মালয়েশিয়ান কেবিনেট দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশগুলো থেকে নতুন করে বিদেশি শ্রমিক আনা বন্ধ করেছে। কেবিনেটের এই সিদ্ধান্তের ফলে বাংলাদেশ থেকে ১৫ লাখ শ্রমিক আনার সিদ্ধান্ত বাতিল হয়ে গেছে।

মালয়েশিয়া বাংলাদেশ থেকে ১৫ লক্ষ শ্রমিক নেয়ার জন্য গত ১৮ ফেব্র“য়ারি জিটুজি প্লাস চুক্তি স্বাক্ষর করে। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর উভয় দেশের সরকার এ চুক্তি করে। এর আগে জিটুজি পর্যায়ে মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশী শ্রমিক নিয়োগের জন্য দুই দেশের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর হলেও তা সফল হয়নি। এই অবস্থায় দুই দেশের সরকারের সঙ্গে বেসরকারি সেক্টরকে সম্পৃক্ত করে ‘জিটুজি প্লাস’ চুক্তি স্বাক্ষর হয়। কিন্তু চুক্তি স্বাক্ষরের পরদিনই বিদেশ থেকে শ্রমিক নেয়ার সিদ্ধান্ত বাতিল করে মালয়েশিয়া সরকার। দেশটির কেবিনেটে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।  মালয়েশিয়া সরকারের এ সিদ্ধান্তে চরম হাতাশা নেমে আসে বাংলাদেশের বেকারদের মধ্যে।

 

share this news to friends