ইউএস-বাংলার বহরে সর্বাধুনিক বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স-৮

বাংলাদেশে প্রথম সর্বাধুনিক বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স-৮ পরিচালনা করবে অন্যতম বেসরকারি এয়ারলাইন্স ইউএস-বাংলা। নেদারল্যান্ডসভিত্তিক আন্তর্জাতিক এয়ারক্রাফট লিজিং কোম্পানি ‘এয়ারক্যাপ’ থেকে দীর্ঘমেয়াদি লিজে আনা হচ্ছে এয়ারক্রাফটি। বোয়িং কোম্পানিও রয়েছে এই উদ্যোগের সঙ্গে।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর লা মেরিডিয়ান হোটেলে এক সাংবাদিক সম্মেলনে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের প্রধান নির্বাহী (সিইও) ইমরান আসিফ এসব তথ্য জানান। এ সময় এয়ারক্যাপ’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও চিফ কমার্শিয়াল অফিসার ফিলিপ স্ক্রাগস, লিজিং কোম্পানির সুতেশ সেলভারাতনাম, দ্য বোয়িং কোম্পানির ডাইরেক্টর সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং আহসেন রাজপুতসহ ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

ইমরান আসিফ বলেন, ইউএস-বাংলা প্রতিষ্ঠার শুরু থেকেই যাত্রী সাধারণের জন্য আরামদায়ক, আধুনিক ও গ্রহণযোগ্য বিমান সংযুক্ত করাই ছিল প্রধান লক্ষ্য। বিশ্বের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠিত এয়ারলাইন্সগুলোতে বর্তমানে অত্যন্ত গ্রহণযোগ্য এয়ারক্রাফট বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স যুক্ত হচ্ছে। ইউএস-বাংলা বাংলাদেশে প্রথম বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স-৮ এয়ারক্রাফট দিয়ে ফ্লাইট পরিচালনা করতে যাচ্ছে, যা ২০১৮ সালের বিমান পরিবহন সেবায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। 

তিনি জানান, খুব শীঘ্রই দুটো ব্র্যান্ড নিউ এটিআর ৭২-৬০০ মডেলের এয়ারক্রাফট ইউএস-বাংলার বিমান বহরে যুক্ত হতে চলেছে। যাত্রী সাধারণের চাহিদা অনুযায়ী, ইউএস-বাংলা-ই প্রথম কোনো বেসরকারি এয়ারলাইন্স, যা ফ্যাক্টরি থেকে সরাসরি এয়ারক্রাফট সংগ্রহ করতে যাচ্ছে।

বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স এয়ারক্রাফটে সংযুক্ত অত্যাধুনিক কেবিন ডিজাইন ও ইন-ফ্লাইট এন্টারটেননমেন্ট সিস্টেম বিশ্বব্যাপী নতুন নতুন গন্তব্যে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। তুলনামূলক কম খরচ, পরিবেশবান্ধব ও সময়ের কারণে এ এয়ারক্রাফট বিশ্বব্যাপী এয়ারালাইন্স কোম্পানির কাছে গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠছে। 

উল্লেখযোগ্য এয়ারলাইন্সগুলোর মধ্যে রয়েছে- মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্স, টার্কিশ এয়ারলাইন্স, ওমান এয়ার, কাতার এয়ারওয়েজ, ইউনাইটেড এয়ারলাইন্স, আমেরিকান এয়ারলাইন্স, চায়না ইস্টার্ন, চায়না সাউদার্ন, জেট এয়ারওয়েজ, স্পাইস জেট, ফ্লাই দুবাইসহ আরও অনেক এয়ারলাইন্স। 

মাইগ্রেশননিউজবিডি.কম/সাদেক ##

 

share this news to friends